ব্যক্তি উদ্যেগে সড়ক নির্মান অ্যামেরিকা প্রবাসী জেমস হাফিজ- দৈনিক বাংলা অধিকার।

0
38

 

প্রতিবেদন, মো: জিসান :লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার শ্যামগঞ্জ গ্রামের ইমাম উদ্দিন মুন্সী বাড়ীর মোঃ সফির অ্যামেরিকা প্রবাসী ছেলে জেমস মোহাম্মদ হাফিজের ঐকান্তিক প্রচেষ্ঠা ও ব্যক্তিগত উদ্যেগে প্রায় ১ কিলোমিটার কাঁচা সড়কের সংস্কার কাজ এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।
সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত উদ্যেগে স্থানীয় প্রায় ২০হাজার এলাকাবাসী, কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, একটি হসপিটালের অসুস্থ্য লোকজনের কথা চিন্তা করে এমন উদ্যেগ ইতোমধ্যে এলাকায় ব্যপক আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

রাস্তা পেয়ে খুশি স্থানীয় গ্রামবাসী।
শ্যামগঞ্জ গ্রামের উত্তর নাপিত বাড়ীর সুবাশ চন্দ্র শীল, সুধীর চন্দ্র শীল, রাখাল চন্দ্র শীলসহ স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, সদর উপজেলার শ্যামগঞ্জ গ্রামের শ্যামগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, দাখিল মাদ্রাসা ও এতিমখানা, শ্যামগঞ্জ-রসুলপুর নূরানী মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ও মিজানুর রহমান মা ও শিশু হসপিটালসহ মন্ডলতলী বাজার, পাটারীরহাঁট, ডা¹াতলী ও ইংলিশ বাজার (আমতলা) যেতে হলে এলাকাবাসীকে অনেক দূর্ভোগ পোহাতে হয়। বর্ষায় পানির নিচে তলিয়ে যায় সড়কটির বেশ কিছু অংশ। শিক্ষার্থীরা স্কুলে যেতে চায় না কর্দমাক্ত সড়ক মাড়িয়ে। এ সড়ক দিয়ে কেউ আসতে চাইলে যানবাহনের ভাড়া গুনতে হয় বেশি।
সম্প্রতি অ্যামেরিকা প্রবাসী উদীয়মান তরুন জেমস মোহাম্মদ হাফিজ অ্যামেরিকা থেকে গ্রামের বাড়ী আসলে উক্ত সড়কের বেহাল দশা দেখে স্থানীয়দের সাথে কথা বলেন। সড়কটি সংস্কারে সহযোগীতা চান, উত্তর হামছাদী ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি মোঃ সলিম পাটোয়ারী, স্থানীয় ইউপি সদস্য হোসেন মেম্বার, হাসুন্দি উচ্চ বিদ্যালয়ের ধর্মীয় শিক্ষক খোকন মাষ্টারসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের। এলাকার সাধারণ মানুষ গ্রামের প্রতি জেমস হাফিজের আন্তরিকতা দেখে অবাক হন। জেমস হাফিজের ডাকে সাড়া দিয়ে স্থানীয় এলাকাবাসী স্ব স্ব অবস্থান থেকে এগিয়ে আসেন সড়কে মাটি ভরাটসহ প্রতিবন্ধকতা অপসারনে। এলাকার মানুষের সহযোগীতা ও উৎসাহ দেখে কাজে নেমে পড়েন জেমস হাফিজ। মাটি ভরাট, বাঁশের সাকো নির্মান, পুকুরের পাশে বাঁশের বেড়া দেয়াসহ সকল কাজে সহযোগীতা করেন স্থানীয় লোকজন। এলাকাবাসী সড়ক সংস্কারে নিজেদের মালিকানাধীন গাছপালা কেটে দিয়ে দ্রুততার সাথে কাজে নেমে পড়েন।
রাজের বাড়ীর মোঃ সোলেমান, প্রবাসী আমির হোসেন, আবুল হাসিম, রসুলপুর ভাটের বাড়ীর সাবেক ইউপি সদস্য মোজাম্মেল মেম্বার ও বাসু মিয়া জানান, জেমস হাফিজের এমন জনহীতকর কাজে আমরা আশান্বিত। নিজ উদ্যেগে এ ধরনের কাজ নিঃসন্দেহে এলাকাবাসীর অনেক দূর্ভোগ লাঘব হবে। আমরা দোয়া করি জেমস হাফিজের জন্য।
এ ব্যপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য হোসেন মেম্বার, খোকন মাষ্টার জানান, জেমস হাফিজ ছোট বেলা থেকে প্রবাসে ছিলেন। গত কয়েকদিন আগে তিনি দেশে ফিরে আসলে এলাকার সড়ক সংস্কারে আমাদের সহযোগীতা চান। আমরা সবকিছুর উর্ধ্বে উঠে জেমস হাফিজের এমন কাজে সহযোগীতা করে আসছি।
এ ব্যপারে জেমস মোহাম্মদ হাফিজ জানান, আমি বিদেশ থেকে এসেছি দীর্ঘদিন পরে। দীর্ঘসময় পর্যন্ত অবহেলিত থাকায় এ গ্রামের প্রায় ১ কিলোমিটার মাটির রাস্তা পুকুরে বিলীন হয়ে গেছে। কোথাও কোথাও বিশালাকৃতির গর্ত ও ভাঙ্গাচুরা। উক্ত সড়কে চলাচলরত মানুষের দূর্ভোগ আমাকে পীড়া দিচ্ছিলো। স্থানীয় প্রশাসন ও লোকজনের কাছে সড়কটি সংস্কারে সহযোগীতা চাইলে এলাকার লোকজন ব্যক্তিগতভাবে সহযোগীতা করেছেন। আমার নিজের সম্পত্তি থেকে মাটি কেটে রাস্তা ভরাট করাসহ গ্রামবাসী নিজেদের গাছ কেটে দিয়েছেন, কেউ শারিরীকভাবে সহযোগীতা করেছেন। এলাকাবাসীর এমন আন্তরিকতা আমাকে বিমুগ্ধ করেছে। আমি কৃতজ্ঞ এলাকার মানুষের প্রতি।