আজ ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং

আনিসুল হকের মতো মেয়র চান নগরবাসী- দৈনিক বাংলার অধিকার

রাত পোহালেই কাল ঢাকার দুই সিটিতে ভোট। পাঁচ বছরের জন্য নির্বাচিত হবেন ঢাকার দুই মেয়রসহ ১৭২ জন কাউন্সিলর। শেষ মুহূর্তে তুমুল উত্তেজনা কে হবেন দুই সিটির মেয়র? আওয়ামী লীগ ও বিএনপির চার প্রার্থী তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতায়।

গত রাতে শেষ হয়েছে প্রার্থীদের সব ধরনের প্রচারণা। বাংলাদেশ প্রতিদিনের দুটি টিম ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণের ভোটারদের সঙ্গে কথা বলেছে টানা কদিন। জানতে চেয়েছেন জনপ্রতিনিধিদের কাছে তাদের ইচ্ছা ও প্রত্যাশা।

অনেকেই দুই দলের প্রার্থীদের পক্ষে যার যার অবস্থানের কথা বললেও সবাই একবাক্যে বলেছেন, তারা আলোকিত, পরিচ্ছন্ন, মশামুক্ত, সবুজ, যানজটমুক্ত, আধুনিক নিরাপদ ঢাকা চান। যেখানে স্বচ্ছতা থাকবে। অতীতের বিভিন্ন সময়ের মতো দুর্নীতির আখড়া হবে না নগরভবন।

দলীয় প্রভাবমুক্ত উন্নয়ন ও সেবার জন্য নগরবাসীর ঐক্যের প্রতীক হবে নগরভবন দুটি।

এক্ষেত্রে সবার এককথা, তারা চান অকাল প্রয়াত ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র আনিসুল হকের মতো মেয়র। আনিসুল হকের মতো কেউ নির্বাচিত হয়ে আসুক এটাই চান তারা। যার হাত ধরে নিয়মনীতি ও কর্মযজ্ঞে নগরবাসীর সমস্যা চিহ্নিত হবে, মিলবে সমাধান।

নগরবাসীর সম্পদ অবৈধ দখলমুক্ত করে নিজেকে উন্নয়ন কাজে নিবেদিত করবেন। নগরবাসীকে এডিস মশার আক্রমণ, জলজট, বর্জ্য, অন্ধকার রাস্তাঘাট, যানজট ও দুর্নীতিমুক্ত রাখবেন। নিরাপদ রাখবেন নগরকে

দুই সিটিতে দুই দলের চার মেয়র প্রার্থীর নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি ও নগর পরিচালনায় তাদের সক্ষমতা নিয়ে এখন চুলচেরা বিশ্লেষণ করছেন ভোটাররা। ঢাকার ভোটাররা বলেছেন, দুই সিটির নির্বাচনে উত্তর সিটির প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের মতো সাহসী, স্বপ্নচারী, উদ্যমী মেয়র চান তারা।

যিনি সিটি করপোরেশনকে দলীয় রাজনীতির প্রভাবমুক্ত রেখে সব নাগরিক সমস্যার যৌক্তিক সমাধানের পথ দেখাবেন। যিনি নিজের জীবন বিপন্ন করে নাগরিক সেবা বিস্তারে দখলমুক্ত রাখবেন জনতার রাজপথ। দলীয় মেয়র হয়েও যিনি হবেন সব নাগরিকের ভরসাস্থল। যার কাছে দল-মত নির্বিশেষে সবাই সমান মর্যাদা পাবেন। যিনি নগরবাসীকে একটি গতিশীল নিরাপদ নগরীর স্বপ্ন দেখাবেন। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করবেন দিন-রাত। ঢাকাবাসী সেই আনিসুল হকের মতো মানবিক মেয়রের প্রত্যাশা করেন। দুই সিটির ভোটাররা বলেছেন, সিটি মেয়রের কাছে তাদের চাওয়ার পরিমাণ খুব কম।

তারা স্বাচ্ছন্দ্যে, নিরাপদে পথ চলতে চান। মশা, আবর্জনা, ধুলোবালি, দূষণ ও জলাবদ্ধতা থেকে রক্ষা পেতে চান। কোনো আপদ যেন পথের বাধা হয়ে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা তৈরি না করে সেই নিশ্চয়তা চান। মুক্ত ফুটপাথে নিরাপদে হাঁটতে চান।

কাজ শেষে নিরাপদে ঘরে ফিরে আসতে চান। মোটকথা, দেড় কোটি মানুষের নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করার মতো তৎপর ও উদ্যমী মেয়র চান তারা। নগরবাসীর মনে যেমন প্রত্যাশা জাগিয়ে গেছেন প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক। সেই আনিসুল হক ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র হিসেবে মাত্র দুই বছর ছয় মাস ২৪ দিন দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

এই সময়ের মধ্যে রাজধানীবাসীর আস্থা অর্জন করেছিলেন তিনি। সততা, পরিশ্রম, ব্যক্তি ইমেজ এবং জাদুকরী নেতৃত্বে নগরীকে ঢেলে সাজাতে শুরু করেছিলেন তিনি। মেয়রের ক্ষমতার সীমাবদ্ধতার বাইরে গিয়ে জনমুখী উদ্যোগে প্রশংসায় সিক্ত হয়েছেন আনিসুল হক। তাই আসন্ন নির্বাচনে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে আনিসুল হকের মতো মেয়র চেয়েছেন ঢাকাবাসী।

আড়াই বছরের মেয়াদকালে মেয়র আনিসুল হক অনেকগুলো আলোচিত কর্মকান্ডে জড়িয়েছেন। দীর্ঘদিন অবৈধ দখলে থাকা তেজগাঁও ট্রাকস্ট্যান্ড উচ্ছেদ ছিল আনিসুল হকের আলোচিত কাজের মধ্যে অন্যতম। গুঁড়িয়ে দিয়েছিলেন দখলদারদের আস্তানা। দখলদারদের দাপটকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে অবমুক্ত করেছিলেন নগরবাসীর সম্পদ, যানজটমুক্ত হয়েছিল সড়ক। নগরভবনকে দালাল ও রাজনীতির প্রভাব থেকে বের করে এনেছিলেন তিনি।

ফলে সাধারণ মানুষের আস্থা ও ভরসাস্থলে পরিণত হয়েছিলেন তিনি। গুলশান ও বারিধারায় বিদেশি দূতাবাসের দখলে থাকা ফুটপাথ অবমুক্ত করেছিলেন তিনি। ঢাকার বিভিন্ন সেবা সংস্থার তারের জঞ্জাল ভূগর্ভস্থ টানেলের মধ্যে নিয়ে যাওয়ার উদ্যোগ নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু দায়িত্ব গ্রহণের মাত্র আড়াই বছর পার হতেই জীবনপ্রদীপ নিভে যায় এই স্বপ্নবাজ মেয়রের। মেয়র নির্বাচনের আগে আনিসুল হকের আরও নানা উদ্যোগ আজ জোর আলোচনায়।

রাজধানীর উত্তরা ১৩ নম্বর সেক্টরের বাসিন্দা ব্যাংকার ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, আনিসুল হক ছিলেন সাহসের প্রতীক। তিনি উন্নয়নের প্রশ্নে কোনো আপস করেননি। নগরপিতা হিসেবে তার মাথায় সব সময় ছিল মানুষের স্বাচ্ছন্দ্যের বিষয়টি। তাকে আমরা অকালে হারালাম।

নইলে আরও ঝকঝকে উত্তর সিটি দেখতে পেতাম আমরা। মোহাম্মদপুরের বাসিন্দা স্কুলশিক্ষক আবুল হাসান বলেন, আনিসুল হক ছিলেন এক নিপুণ সংগঠক। তিনি সবার সঙ্গে সমঝোতা করে, সবার কাছ থেকে বুদ্ধি-পরামর্শ নিয়ে, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকাকে ঢেলে সাজাতে চেয়েছিলেন।

পুরো মেয়াদ থাকতে পারলে তিনি হয়তো ঢাকার অনেক পরিবর্তন আনতে পারতেন। আনিসের মতোই একজন নিবেদিত নগরপিতা আমরা চাই। তিনি রাজনৈতিক কর্মী না হয়েও নগরবাসীর প্রতি তাঁর কমিটমেন্ট রক্ষা করেছেন। লালবাগের ওষুধ ব্যবসায়ী হারিস ইকবাল বলেন, আমরা দক্ষিণ সিটিতে যদি পূর্ণ মেয়াদে আনিসুল হকের মতো একজন সাহসী, নিবেদিত মেয়র পেতাম তাহলে পুরান ঢাকা এতদিন বদলে যেত।

মিরপুর শেওড়াপাড়ার সংস্কৃতিকর্মী আবিদুর রেজা বলেন, আনিসুল হক যখন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী হলেন তখন আমাদের অবাক লেগেছিল। কিন্তু তিনি তাঁর কাজের মধ্য দিয়ে দলীয় পরিচয়ের ঊর্ধ্বে উঠে গিয়েছিলেন। তার মতো মেয়রই আমরা চাই। কথা হচ্ছিল মিরপুর ১ নম্বর কাঁচাবাজারের ব্যবসায়ী রফিক, বাবু, হাসেম ও ওসমানের সঙ্গে।

তারা প্রায় অভিন্ন কণ্ঠে বলেন, মেয়র আনিসের সময় রাস্তাঘাট, ড্রেন, ফুটপাথের অনেক উন্নতি হয়েছে। ইলেকট্রিকের খাম্বা সরিয়ে তিনি রাস্তা অনেক বড় করেছেন। এখন অলিগলিতে অনেক বড় রাস্তা হয়েছে। শ্যামলীর গৃহবধূ শরিফা খাতুন বলেন, আনিসুল হকের মতো মেয়র কি আর পাওয়া যাবে? দল-মত নির্বিশেষে সবাই তাকে পছন্দ করতেন।

তার ব্যক্তিগত উদারতা, সবার সমস্যায় এগিয়ে আসার যে মানসিকতা ছিল সেটাই মানুষের অন্তরে বাঁচিয়ে রেখেছে।

     এই বিভাগের আরোও সংবাদ

আর্কাইভ