সাপাহার রিপোর্টার্স ফোরামে সংবাদ সম্মেলন

0
25

সোহেল চৌধুরী রানা, নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি: সাপাহার উপজেলা সদরের ‘মন্ডল জুয়েলার্স’র মালিক হুমায়ন কবিরের প্রতারণার বিরুদ্ধে উপজেলার সৃজনশীল সাংবাদিক সংগঠন ‘সাপাহার রিপোর্টার্স ফোরামে’ সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভুক্তভোগী মহররম হোসেন। বুধবার বিকেলে রিপোর্টার্স ফোরামে অনুষ্ঠিত ওই সাংবাদিক সম্মেলনে ভুক্তভুগী মহরম হোসেন তার লিখিত বক্তব্যে সাংবাদিকদের জানান, ‘মন্ডল জুয়েলার্স’র মালিক হুমায়ন কবির প্রায় ২ বছর আগে আমার নিকট ৭ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা কর্জ নেয় কোন এক জায়গা ক্রয় বাবদ। অল্প কয়েকদিনের মধ্যে টাকা ফেরৎ দেওয়ার কথাও তিনি বলেন। কিন্তু পরবর্তী সময়ে কোন কারণ ছাড়াই কর্জ নেওয়া ওই টাকা দিতে গড়িমসি করে। এই বিষয় নিয়ে কয়েকবার বিচার শালিশ হওয়ার পরে ৩ লক্ষ টাকা প্রদান করে। দীর্ঘদিন পার হয়ে গেলেও বাঁকী ৪ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা অদ্যবধি পরিশোধ করেনি। তার কাছে অবশিষ্ট টাকা চাইলে সে বিভিন্ন টাল-বাহানা শুরু করে। তৎসঙ্গে টাকা দিবেনা মর্মে , আমার বিরুদ্ধে নানান মানহানিকর সংবাদ পরিবেশন করিয়ে নেয়। উল্লেখ্য যে, প্রাথমিক ভাবে হুমায়ন বাবুল আক্তারের নিকট এহেন প্রতারনার জন্য অফার করাকালীন সময়ে কতিথ বাবুল আক্তার এই সুযোগ কাজে লাগানোর লক্ষ্যে সাপাহার মোটর শ্রমিক অফিসের সভাপতির নিকট একটি আলমারী ও নগদ অর্থ দাবী করে। লিখিত বক্তব্যে মহররম হোসেন আরো জানান, উক্ত স্বর্ন ব্যাবসায়ী হুমায়ন কবির সাপাহারের বিশিষ্ট স্বর্নব্যাসায়ী মিজানুর রহমানের দোকানে কর্মচারী ছিলো। কর্মচারী থাকা অবস্থায় হঠাতই নিজেই একজন বড়ো-সড়ো স্বর্নব্যাবসায়ী বনে যান। মহররম হোসেন সাংবাদিকদের নিকট প্রশ্ন রাখেন “একজন কর্মচারী কি ভাবে হঠাৎ মালিক বনে যেতে পারে”? তিনি আরো জানান, কতিথ ওই হুমায়ন কবির তার ব্যাবসা ক্যারিয়ারে মানুষকে নকল স্বর্ন সরবরাহের জন্য স্বর্নকার সমিতিতে বেশ কয়েকবার বিচারের মুখোমুখি হন। এ ধরণের প্রতারণার ফাঁদ পাকিয়ে তার অপব্যবসা দিধারছে চালিয়ে যাচ্ছে। যাতে করে প্রতারিত হচ্ছে এলাকার সাধারণ মানুষ। উক্ত সংবাদ সম্মেলনের মধ্যে দিয়ে মহরম হোসেন প্রতারক ওই হুমায়ন কবিরের নিকট কেউ যেন স্বর্ণ কিনে কোন প্রকার প্রতারিত না হন এ বিষয়ে জনগনকে সাংবাদিকদের মাধ্যমে সচেতনের আহ্বান জানান।