নাটোরের বাগাতিপাড়ায় গর্ভকালীন সেবা নাদিয়ে সেবাগ্রহিতার সাথে অসদ আচরনের অভিযোগ

0
24

মো: রাজিবুল ইসলাম বাবু নাটোর প্রতিনিধিঃ
নাটোরের বাগাতিপাড়ায় গর্ভকালীন সেবা নাদিয়ে সেবাগ্রহিতার সাথে অসদ আচরনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এঘটনায় প্রতিবাদ করায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের সাথেও অসদ আচরনের অভিযোগ পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শীকা নাসিমা বেগম এর বিরুদ্ধে। বুধবার দুপুরে উপজেলার দয়ারামপুর নন্দিকুজা গ্রামের আব্দুস ছাত্তার মিয়ার বাড়ীতে স্যাটালাইট সেবা কেন্দ্রে সেবা নিতে গেলে ঘটে এমন ঘটনা। সেবা গ্রহিতা বাটিকামারী গ্রামের শ্রী দিলীপ হালদার এর স্ত্রী শ্রীমতি রীপা রানী হালদার এব্যাপারে ইউএনও কে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মাতৃত্বকাল ভাতা মুঞ্জুর আবেদনের জন্য পরিবার পরিকল্পনা অফিস কর্তৃক ইস্যুকৃত গর্ভকালীন সেবা কার্ড নিতে বুধবার বিকেলে নন্দিকুজা গ্রামের আব্দুস ছাত্তার মিয়ার বাড়ীতে অস্থায়ি সেবা কেন্দ্রে যায় বাটিকামারী গ্রামের শ্রীমতি রীপা রানী হালদার। সেখানে পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শীকা নাসিমা বেগম চেকাপ করে বলেন রীপা রানীর পেটে কোন সন্তানের অালামত নেই। রীপা রানী তার কথার প্রতিবাদ করে এবং সে যে অন্তসত্ত্বা সেটা বোঝানোর চেষ্টা করে কিন্তু নাসিমা বেগম রেগে গিয়ে বিভিন্ন ধরনে অবাঞ্চিত কথা বলে রীপা রানী কে।
বিষয়টি মুঠফোনে উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খোদিজা বেগম শাপলাকে অবগত করেন রিপা রাণী। বিষয়টি জানতে নাসিমা বেগমকে ফোন দেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান। এতে নাসিমা বেগম আরও ক্ষিপ্ত হয়ে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের সাথেও অসদ আচরন করেন নাসিমা বেগম।
এসময় নাসিমা বেগম আরো ক্ষিপ্ত হয়ে রীপা রানী কে
ধমক দিয়ে বলেন, বাংলা কথা বোঝনা এখনো দাঁড়িয়ে আছো বের হয়ে যাও। পারলে যা খুশি করো।
এঘটনায় রীপা রানী ইউএনও বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন এবং যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুলিপি দেন
জেলা প্রশাষক ও সিভিল সার্জন নাটোর,
বাগাতিপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসার,
বাগাতিপাড়া উপজেলা প্রেস ক্লাব কে।
এব্যাপারে পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শীকা নাসিমা বেগম এর সাথে মুঠোফোনে কথা বল্লে তিনি এঘটনা অস্বীকার করেন।
তবে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খোদিজা বেগম শাপলা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এমন ঘটনা খুবি দুঃখ জনক। ঘটনাটি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহনের জোর দাবি জানান তিনি।

উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসার খাদেমুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি জানার পরেই পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শীকা নাসিমা বেগম কে ডেকে তার কাছ থেকে জানার চেষ্টা করেছি। এব্যাপারে আরো ক্ষতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।